1. admin@probahomanbangla24.com : admin :
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:৩৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বগুড়া ১ আসনের সংসদ সদস্য করোনা পজিটিভ। কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক। আজকের খুদে বিজ্ঞানীরাই একদিন বিজ্ঞান প্রযুক্তির উৎকর্ষতার মাধ্যমে দেশকে সমৃদ্ধ করবে—আলী আজম মুকুল এমপি বরিশালে মুজিব শতবার্ষি উপলক্ষে মোবাইল সার্ভিসিং ইলেকট্রনিক এন্ড হাউস ওয়্যারিং ও সেলার সিস্টেম প্রশিক্ষণ এর উদ্বোধন। ভোলায় নব-নির্বাচিত আলীনগর ইউনিয়ন বিএনপি’র কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠিত। আইজিপি কর্তৃক বাস উপহার পেল কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশ আগৈলঝাড়ায় ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ আগৈলঝাড়ায় প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন গৌরনদী উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। নাগরপুরে চলছে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি

ভারতীয় সীমান্তে আটক এস,আই আকবর

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩৭ বার পঠিত

 

সিলেট সদর উপজেলা প্রতিনিধি :: এস,আই আকবর কে রোববার মধ্যে রাতে ভারতীয় দনা সীমান্ত এলাকায় খাসিয়াদের হেডম্যানরা আটক করে এবং তাদের হেফাজতে রাখে।

রায়হান হত্যাকাণ্ডের অভিযুক্ত আকবর বলেন, রায়হানকে একা মারেননি, ৫-৬ জন মিলে মারায় সে মরে গেছে এবং সিনিয়র এক অফিসারের পরামর্শে তিনি পালিয়েছিলেন বলে আটকের পর জনতার কাছে স্বীকারোক্তি দিলেন এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়া।

তার দেওয়া এমন স্বীকারোক্তিমূলক একটি ভিডিও মুহূর্তে ছড়িয়ে পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ।

ভিডিওতে আকবরকে বলতে শুনা যায় ‘আমি মারিনি ভাই, আমি ইচ্ছা করে একা মারিনি। তারে মারতেছিলো ৫/৬ জন। পাবলিক মেরেছে তাই সে মরে গেছে। আমি বরং তারে হাসপাতালে নিয়েছি। কিন্তু ওখান থেকে সে মরে গেছে। সে টাকা ছিনতাই করেছিলো।

তাহলে পালিয়েছ কেন এমন প্রশ্নে আকবর বলেন, ‘আমারে এক সিনিয়র অফিসার বলেছেন সাসপেন্ড করেছে। গ্রেপ্তার করতে পারে। তাই তুমি আপাতত চলে যাও। কদিন পরে আইসো। ২ মাস পরে সব ঠাণ্ডা হয়ে যাবে। তখন আইসো। আমি অন্য কোন কারণে ভাগিনী ভাই।’

পরে সোমবার দুপুর ১টার দিকে ভারতীয় খাসিয়ারা আকবরকে বাংলাদেশ সীমান্তে স্থানীয় গরু ব্যবসায়ীসহ লোকজনদের কাছে বুঝিয়ে দেন। পরে এ ঘটনা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে থানা পুলিশ ও জেলা পুলিশের একটি টিম তাকে জনতার কাছ থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

 

গত ১১ অক্টোবর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে গুরুতর আহত হন রায়হান। তাকে ওইদিন সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন বন্দরবাজার ফাঁড়ির এএসআই আশেকে এলাহীসহ পুলিশ সদসরা। সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে হাসপাতালে মারা যান রায়হান।

ঘটনার পর পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, নগরের কাস্টঘরে গণপিটুনিতে রায়হান নিহত হন। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে প্রাণ হারান রায়হান।

এ ঘটনায় রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে সিলেট মহানগর পুলিশের তদন্ত কমিটি ঘটনার সত্যতা পেয়ে বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবরসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করেন মামলাটি পুলিশ সদরদপ্তরের নির্দেশে পিবিআইয়ের তদন্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© probahomanbangla.com © 2020
কারিগরি সহযোগিতায়: মোস্তাকিম জনি